বাংলা ভাগ, বর্তমান সময় ও বিসর্জন

অমানিতা সেন

1
Bisarjan

বাংলা সিনেমার দর্শককে যে’কজন নির্দেশক প্রেক্ষাগৃহ অভিমুখী রাখতে পেরেছেন, তার মধ্যে কৌশিক গাঙ্গুলির নাম যে বেশ কিছু বছর ধরেই অগ্রগণ্য থাকছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তবু নন্দন প্রেক্ষাগৃহের সামনে দর্শকদের যে উপচে পড়া ভিড় দেখলাম, তার মূলে যে এই ছবির “সেরা বাংলা ছবি” বিভাগে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার প্রাপ্তির সংবাদ, সেটি বুঝতে অসুবিধে হয় না। আমিও যে মুখ্যত সেই কারণেই গিয়েছি বলতে দ্বিধা নেই।
ছবির শুরুতেই এ ছবির সঙ্গীতকার কালিকাপ্রসাদ ভট্টাচার্যকে সম্বোধন করে যখন পর্দায় লেখা ভেসে এল যে তিনি সঙ্গে আছেন, এই ছবি দেখেছেন, আমারও মনে হল বিদেহী হলেও আপনজনেরা তো আমাদের সঙ্গেই থাকেন। সৃষ্টির সঙ্গেও বিজড়িত থেকে যান স্রষ্টারা জীবনের ‍ওপারেও। তাই তাঁর যে বিদায় নেই, এই ভেবে আশ্বস্ত হলাম।
সুর এই ছবির আশ্চর্য সঙ্গতকার! যেন নিজেই সে এক চরিত্র! ইছামতী নদী, বাংলাদেশের সীমান্তে অবস্থিত গ্রাম– এই পটভুমিকাকে জীবন্ত করতে লোকসঙ্গীতের যথাযথ ব্যবহার মুগ্ধ করল। সিনেমার চলনের সঙ্গে মিশে থাকল, কোথাও বিঘ্ন ঘটিয়ে বাজল না চড়া সুর।
আরও পড়ুন: আমরা কেন ছোটদের জন্য ছবি বানাতে পারছি না?
বাংলা-ভাগ’কে কেন্দ্র করে দু’দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের যে অবনতির ভার আজও বহন করে চলেছে দু’দেশের মানুষ, সেই টানাপোড়েন মূর্ত হয়ে ওঠে- ভারতের নাসের আলি যখন জ্ঞানহীন অবস্থায় আশ্রয় পায় বাংলাদেশের হিন্দু বিধবার ঘরে। তার শুশ্রূষাকে কেন্দ্র করে গল্প এগিয়ে চলে।
আমি সেই দলভুক্ত যারা মনে করে ‘cinema as an art-form’ কিছু দায়িত্ত্ব রাখে সমাজকে একটা সার্বিকভাবে কল্যানময় দৃষ্টিভঙ্গির দিক নির্দেশ করে দিতে। কোনওরকম উপদেশ না দিয়েও, কঠিন বাস্তব দর্শন করিয়েও, জীবনের সহজ সত্যকে প্রতিষ্ঠা করা গেল এই ছবিতে। যে   মানুষসৃষ্ট সব বিভেদকামী শক্তি- ধার্মিক, রাজনৈতিক, সামাজিক শক্তির উপরে মানুষের স্থান, তার সহজাত সুপ্রবৃত্তির স্থান, তার অমলিন ভাবাবেগের স্থান। এমনকি জল বণ্টন নিয়ে দু’দেশের মধ্যে যে চাপান-উতোর চলছে, সেও এল চরিত্রদের সংলাপে, নিজেদের অবস্থান তাঁরা ব্যক্ত করলেন নির্ভীকভাবে।
বাংলাদেশী অভিনেত্রী জয়া আহসানের ‘threading’ না করা ভুরু মন ভরাল। এর আলাদা উল্লেখ করলাম এই কারণে যে টিভি সিরিয়ালের হাত ধরে অভিনেত্রীদের অবিশ্বাস্য সাজের বহর প্রায় উপদ্রবের আকার নিয়েছে। মেক-আপের পরিমিতিবোধ যে ছবির সম্পদ হতে পারে সেটি এখানে শিক্ষণীয়। অস্বচ্ছ্বল পরিবারের বিধবার সাজে ও অভিনয়ে জয়া এক অসাধারণ কাজের সাক্ষ্য রাখলেন। বার তিনেক তিনি যেভাবে চমকে উঠলেন, তাতে তিনি আমাকেও চমকে দিলেন। আর যে দৃশ্যে এ ছবির নামটি অর্থবহ হয়ে উঠল, সেখানে তাঁর অভিব্যক্তি মনে গেঁথে থাকল।
আরও পড়ুন: বাঙালির ব্যোমকেশ বাসনা
কৌশিক গাঙ্গুলি আরও একবার অবাক করলেন তার দক্ষ অভিনয় দিয়ে। এমনিতেই তাঁর চিত্রনাট্যে হাস্যরসের এক সুক্ষ্ম অথচ গভীর স্থান থাকবে এমন আশা করেই যাওয়া। পাশে বসা এক ঝাঁক তরুণী তার সংলাপ শুনে প্রায় বিরক্তি ঘটিয়ে সজোরে হেসে উঠছিল। নিছক বয়সের ধর্ম এবং কোনওকালে নিজেও এ’কাজ করেছি ভেবে তাদের দিকে রাগী দৃষ্টি নিক্ষেপ করা থেকে নিজেকে বিরত রাখলাম। ব্যক্তিগতভাবে আমি, ওই হাস্যরসের আড়ালে যে উৎকণ্ঠা ছিল, তাকেই বেশি অনুভব করেছি, ভয়ও পেয়েছি।
একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনেতা লামা নজর কাড়লেন। তাঁর শরীরী ও চোখের ভাষার ব্যবহার চরিত্রকে আরও জীবন্ত করল। নাসের আলি চরিত্রে আবীর তাঁর অসহায়তাকে ফুটিয়ে তুললেন সহজভাবেই।
তবুও, এ ছবিতে শুধু একবার যে দৃশ্যে মনে হল সংলাপ প্রলম্বিত হচ্ছে, সেটি এল প্রায় শেষের দিকে। যে প্রেম রাত পোহালেই চির বিচ্ছেদের দিন দেখবে, যে প্রেম পরিস্থিতির ভয়াবহতা  সত্ত্বেও শারীরিক পূর্ণতা প্রাপ্তির পথে, তখন সংলাপ প্রায় নিষ্প্রয়োজন হয়। শুধু সেটুকু সময় কিঞ্চিত ধৈর্যচ্যুতি ছাড়া বাকি সময় চরিত্রদের জীবনের গতি, পরিণতি নিয়ে প্রায় উদ্বেগেই ছিলাম বলা যায়।
দর্শক হিসেবে আমার একটা নিজস্ব চাহিদা থাকে প্রায় সব ছবির ক্ষেত্রেই। যে মানুষ আমি প্রেক্ষাগৃহে ঢুকি আর যে বেরিয়ে আসি তার যেন কোথাও একটা যাত্রা থাকে, একটা পৌঁছনো থাকে কোথাও।
‘নায়ক’-এর শেষ দৃশ্যে শর্মিলা ঠাকুর তার সাক্ষাৎকারের নোট্‌স এর লেখাটি যখন ছিঁড়ে ফেলেন তখন আমার ‘পৌঁছনো’ হয়ে যায় বা ‘কাঞ্চনজঙ্ঘা’য় করুনা বান্দপাধ্যায় যখন উল বোনা থামিয়ে বলে ওঠেন যে তাঁর কন্যার কোথাও বাধা নেই স্বাধীনভাবে জীবন যাপন করতে, আমি ‘পৌঁছে’ যেতে পারি।
অনেকদিন পর এই ছবির শেষ দৃশ্যে কোথাও ‘পৌঁছনো’ গেল। যারা দেখেননি তাদের জন্য জানালাম না তার রকম কেমন ছিল। যারা দেখেছেন তাদের কাছে জানতে আগ্রহী থাকলাম শেষ দৃশ্য প্রসঙ্গে তাদের বক্তব্য!
প্রায় সমস্ত বাঙ্গালী যেমন তীব্র আবেগের বশে ইংরেজী বলে ওঠেন, ছবির শেষে আমিও মনে মনে বললাম, “Thank you Mr. Kaushik Ganguly! Thank you sir!”

#Bisarjan #Movie # Kaushik Ganguly #AbirChatterjee #JoyaAhsan

  • Biswajit Chattopadhyay

    alochonatike byaktigoto porishor er baire na rekhe nijekeo chobi r 1ti choritra hisebe antorvukto korechen Amanita, koyekti garho abhiggyotar katha akopote likhechen… tnake lokkho kore chobitir andormohole probesh na korar kono ajhuhat r nei.. bakituku dekhe asar por.. KG & A S k kurnish