দক্ষ কবির সূক্ষ্ম কাজ

এম এস বুল্টু

0

কিছু কিছু ছোট ছুরি বা নুড়ি পাথর আছে যা দৃশ্যত আপাত নিরীহ মনে হলেও তরবারির চেয়েও ধারালো ও কার্যকারী হয়ে ওঠে। সদ্য কবিয়াল থেকে প্রকাশিত বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের ‘শেয়াল ও নার্সিসাস’ নামক মাত্র এক ফর্মার চটি কবিতার বইটি পড়ে এমন কথাই প্রথমে মনে এল। কেননা চটি কবিতার বইটির দৃশ্যত আপাত নিরীহ কবিতাগুলি পাঠ করলে প্রকৃত কবিতাপ্রেমী পাঠক এইসব কবিতাগুলির ধারালতা স্পষ্ট অনুভব করতে পারবেন। আমাদের ঘিরে থাকা এক ধূর্ত সময়ের ছদ্মবেশী লুটেরাদের প্রতি ইঙ্গিতপূর্ণভাবে ছন্দবদ্ধ যুদ্ধ ঘোষণা যেমন রয়েছে কবিতাগুলির মধ্যে, তেমনি রয়েছে সভ্যতাসঙ্কটের বার্তাও। কিরকম? দু’একটি উদাহরণ দেওয়া যাক। যেমন ৮ নং পৃষ্ঠার কবিতাটির শেষ তিন স্তবক –
“পাপ তো টিকিটমাত্র, মূল্য ধরে দিয়েছেন যিনি
তার চিনি জোগাবেন, চিন্তাদেবী, বুকটুক খুলে
ধনপতি সিংহাসনে– অবিলম্বে পুস্তিকা প্রকাশ,
সভানেত্রী ওঠামাত্র মঞ্চটিও শূন্যে ওঠে দুলে
লেখো নীল মহাসর্প, লেখো বীর্য, অধবর্গকেও
সালিশি মান্যতা দাও– হে পুলিশ, শেখাও দীনতা
যে তত্ত্ব বর্গীয় তথা ভূমিস্বত্ব স্বীকার করে না
দগ্ধ করো সেই পুঁথি– বলো জয়, রুচিস্বাধীনতা
এসেছে ফুর্তির রাত, লালনীল হুরিপরি, অন্তরীক্ষ প্রথোদসরণি
ধর্ম অর্থ কাম মোক্ষ, তুমি ব্যর্থ, তুমি দুষ্ট, যাই হোক, রেপ তো করোনি।
অবশ্যই কবিতাধর্মীভাবে স্পষ্ট কথা ও সাহসী তর্জনী যেমন কবিতাগুলির মধ্যে উপস্থিত তেমনই রয়েছে স্যুররিয়ালিজ্‌ম ও জাদু বাস্তবতার এক নম্র মিশেল। এসবের যথেষ্ট কবিতার ছন্দীয় অন্তর্প্রবাহ কবিতাগুলিকে আরও মোহময় করে তোলে। যেমন গদ্য শৈলীতে লেখা ৭ নং পৃষ্ঠার কবিতাটি –
“গড্ডালিকা যেদিকে যায় প্রবাহ তার উল্টোদিকে হাঁটে। তারতম্য বোঝাতে আমি হাতটিকে ছোট করি। ছোট হতে হতে সে একটি ক্ষুদ্র মশার আকার নেয় ও আমাকেই দংশন করতে প্রবৃত্ত হয়। বাধ্য হয়ে একটি শিলাখন্ড দিয়ে আমি মশাটিকে হত্যা করি। লক্ষ্য করি আমার হাত রক্তাত্ত। মশারির ভিতর থেকে দুটি চোখ ও একটি জিভ আমার দিকে এগিয়ে আসে আর থ্যাতলানো হাতটির রক্তপান করে।
স্বপ্ন নয়, জাগরণের মধ্যে আমি টের পাই নক্ষত্রখচিত এই রাত আর নিরাপদ নয়”।
    কবিতাগুলি পড়লে বোঝা যায় বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের ছন্দের কান যথেষ্ট সজাগ এবং ছন্দ প্রয়োগে তিনি যথেষ্ট দক্ষ। সেই সঙ্গে কবিতাগুলির মধ্যে রয়েছে হরেক মজা, যে মজার নির্মাণ তার একান্তই নিজস্ব ও তাঁর কবিতার অন্যতম বৈশিষ্ট্য। এই মজার সঙ্গে কোথাও বা মিশে থাকে শ্লেষাত্মক ভঙ্গিমা।
সবশেষে বলা যায় মাত্র চোদ্দোটি কবিতায় সমৃদ্ধ ‘শেয়াল ও নার্সিসাস’ এই চটি বইটি যে প্রকৃত কবিতাপ্রেমীদের এক রোমাঞ্চকর সাহসী অভিজ্ঞতা প্রদান করবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।
শেয়াল ও নার্সিসাস
বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়
কবিয়াল, ২৫/-